Top banner
Language : Bengali | English
Quick Links
 


Date: 14-02-2013

রাষ্ট্রপতি মোঃ জিল্লুর রহমান এর সাথে আজ বঙ্গভবনে বাংলাদেশে নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মি. এম ভাকুর ইরকুল (গৎ. গ. ঠধশঁৎ ঊৎশঁষ) বিদায়ী সাক্ষাত করেন।

বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের মেয়াদকালে বাংলাদেশের সাথে তুরস্কের সহযোগিতার সম্পর্ক নতুন পর্যায়ে উন্নীত হওয়ায় রাষ্ট্রপতি বিদায়ী রাষ্ট্রদূতকে ধন্যবাদ জানান।

রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশের সাথে তুরস্কের সরাসরি বিমান যোগাযোগ চালু হয়েছে এবং দু’দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে সফর হয়েছে। তিনি আশা প্রকাশ করেন, আগামীতে তুরস্কের বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগ করবে এবং দু’দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য আরো সম্প্রসারিত হবে।

বিদায়ী রাষ্ট্রদূত বলেন, ৮ম শতাব্দী থেকে বাংলাদেশের সাথে তুরস্কের সম্পর্ক রয়েছে। হয়রত শাহ জালাল রঃ এর পূর্বপুরুষ তুরস্ক থেকে ইয়ামেন হয়ে বাংলাদেশে ইসলাম প্রচার শুরু করেন। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন, বাংলাদেশের সাথে তুরস্কের বিদ্যমান হাজার বছরের এ সম্পর্ক আরো সম্প্রসারিত হবে।

বিদায়ী রাষ্ট্রদূত বলেন, বর্তমানে সপ্তাহে চার দিন ‘টারকিস এয়ারলাইন্স’ বাংলাদেশে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। তিনি জানান, আগামী জুন থেকে তা প্রতিদিনই চলাচল করবে।

রাষ্ট্রদূত জানান, বাংলাদেশে ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণ ছাড়াও তুরস্ক সরকার বাংলাদেশে ভোকেশনাল টেনিং দিচ্ছে, ৩৫ টি প্রতিষ্ঠানের মাধমে শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখছে। তাছাড়াও প্রতি বছর ৫০ জন ছাত্রকে এই শর্তে উচ্চ শিক্ষা প্রদানের জন্য স্কলারশীপ দিচ্ছে যে, তারা উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে বাংলাদেশে কাজ করবে।

বিদায়ী রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশের সাথে তুরস্কের হাজার বছরের সম্পর্ক রয়েছে। বাংলাদেশকে সহযোগিতা করা তুরস্কের দায়িত্ব। রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের সার্বিক সাফল্যের ব্যাপারে খুবই আশাবাদী। তিনি বিশ্বমন্দা সত্ত্বেও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ৬% এর উপরে বজায় রাখার জন্য সরকারের কর্মকান্ডের প্রশংসা করেন। তিনি আশা প্রকাশ করেন, অচিরেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে।

বিদায়ী রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের জনগণের আচার-ব্যবহার, খাদ্যাভাস ও আতিথেয়তার ভূয়সী প্রশংসা করেন। দায়িত্ব পালনে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের জন্য তিনি বাংলাদেশের সরকার ও জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

এসময় রাষ্ট্রপতির সচিবগণ উপস্থিত ছিলেন। 
রাষ্ট্রপতির সাথে সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাত

রাষ্ট্রপতি মোঃ জিল্লুর রহমানের সাথে আজ বঙ্গভবনে সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার মাহবুব উজ-জামান সাক্ষাত করেন। 

সাক্ষাতকালে রাষ্ট্রদূত জানান, সিঙ্গাপুরে বর্তমানে প্রায় এক লাখ বিশ হাজার বাংলাদেশী শ্রমিক ও পেশাজীবি কর্মরত রয়েছেন। তারা গত বছর ৮০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার রেমিটেন্স পাঠিয়েছে।

রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ থেকে আরো দক্ষ, আধাদক্ষ জনশক্তি সিঙ্গাপুরে নিয়োগ এবং সিঙ্গাপুরে কর্মকালীন সময়ে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন শ্রমিকদের সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য রাষ্ট্রদূতকে নির্দেশ দেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশে এখন বিনিয়োগের চমৎকার পরিবেশ বিরাজ করছে। তিনি বাংলাদেশে সিঙ্গাপুরের বিনিয়োগ বাড়ানোর উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশের পর্যটন ও হাইটেক খাতে সিঙ্গাপুরের বিনিয়োগকারীগণ বিনিয়োগ করতে পারেন।

রাষ্ট্রদূত জানান, গত ডিসেম্বরে সিঙ্গাপুরে বিনিয়োগকারীদের একটি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং আগামী এপ্রিল মাসে সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশী পণ্যের একটি ‘একক ট্রেড ফেয়ার’ অনুষ্ঠিত হবে। তিনি জানান, সিঙ্গাপুরের অনেক বিনিয়োগকারী বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। তারা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে অনেক খুশি।

সাক্ষাতকালে রাষ্ট্রপতির সচিবগণ উপস্থিত ছিলেন।

এ কে এম নেছার উদ্দিন ভূঞা
মহামান্য রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব
বঙ্গভবন, ঢাকা।



Home | Contact us | Sitemap
© Copyright 2009, Bangabhaban - Bangladesh, all rights reserved.
Financed by Support to ICT Task Force (SICT) , Planing Division. Developed by : Ethics Advanced Technology Ltd. (EATL)