Top banner
Language : Bengali | English
Quick Links
 




স্থানঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় খেলার মাঠ
তারিখ : ২০ ফাল্গুন ১৪১৯ ৪ মার্চ ২০১৩


বিস্মিল্লাহির রাহমানির রাহিম

ভারতের মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও সমাবর্তন বক্তা
শ্রী প্রণব মুখার্জী,
মন্ত্রী পরিষদের মাননীয় সদস্যবৃন্দ
ও সংসদ সদস্যগণ,
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপাচার্য
প্রফেসর আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক,
সম্মানিত সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্যবৃন্দ,
বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন
ও শিক্ষকমণ্ডলী
এবং
উপস্থিত সুধীমন্ডলী,

আসসালামু আলাইকুম।


আমি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি মহান ভাষা আন্দোলন ও মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী বীর শহীদদের।
আমি পরম শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি মহান স্বাধীনতার প্রাণ পুরুষ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তাঁর পরিবারের সদস্য এবং জাতীয় চার নেতাকে। আমি তাঁদের সকলের আত্মার মাগফিরাত কামনা করি।

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঐতিহ্যবাহী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৭তম সমাবর্তনের এই স্মরণীয় দিনে আমি আপনাদের সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাই।
সুধীমণ্ডলী,
বন্ধু প্রতিম ভারতের মহামান্য রাষ্ট্রপতির সানুগ্রহ অংশগ্রহণের ফলে এটি একটি অনন্য সাধারণ ঐতিহাসিক অনুষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। এছাড়াও রাষ্ট্রপতি হিসেবে প্রথম বিদেশ সফরের ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে নির্বাচন করায় আমরা আনন্দিত ও গর্বিত। আমি সে জন্য মহামান্য অতিথির প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানাই। আজ এ মহান অতিথিকে সম্মানসূচক ‘ডক্টর অব ল’জ’ ডিগ্রী প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করায় আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই।

বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ভারতের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আপনার অবদান সর্বজনবিদিত ও প্রশংসনীয়। তাই আমি আমার নিজের ও দেশবাসীর পক্ষ থেকে আপনাকে ধন্যবাদ জানাই।

সুধীমণ্ডলী,
আপনারা জানেন, প্রতিষ্ঠার পর থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এ অঞ্চলের শিক্ষা বিস্তারের পাশাপাশি আমাদের নিজস্ব ভাষা, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য বিকাশে, নিরবচ্ছিন্ন অবদান রেখে চলেছে। মাতৃভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠা, স্বাধিকার আন্দোলন, মহান মুক্তিযুদ্ধসহ প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে এ প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা অগ্রণী। আমার বিশ্বাস এ প্রক্রিয়া আগামী দিনগুলোতেও অব্যাহত থাকবে।

সুধীমন্ডলী,
    প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে আমাদেরকে উন্নয়ন ও আধুনিকতার পথে এগিয়ে যেতে হবে। তথ্য-প্রযুক্তি ও জীব প্রযুক্তির অগ্রযাত্রার সাথে সম্পৃক্ত হতে হবে। জাতিকে অগ্রগতির পথে এগিয়ে নিয়ে যেতে ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকল্প গৃহীত হয়েছে; এর ফলাফল দেশের সাধারণ মানুষের জীবনমান উন্নয়নে কাজে লাগাতে হবে। এ লক্ষ্য অর্জনে বাস্তব অবদান রাখার জন্য আমি শ্রদ্ধেয় শিক্ষক শিক্ষিকা ও ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।
আপনারা জানেন, আমাদের সকল আন্দোলন সংগ্রামে ছাত্র সমাজের গৌরবময় অবদান রয়েছে। এই ঐতিহ্য অব্যাহত রাখার জন্য আমি ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি আহ্বান জানাই।
প্রিয় গ্রাজুয়েটবৃন্দ,

আমি আপনাদের অভিনন্দন জানাই। কামনা করি আপনাদের সাফল্য। সমাবর্তন মেধা ও যোগ্যতার আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেয়। সাথে সাথে আগামী দিনে দেশ ও জাতির প্রতি দায়িত্ব ও কর্তব্যের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। আশা করি সারা জীবন, সত্য ও ন্যায়ের অনুসরণ করে, মানবতার কল্যাণে সাধ্যমত অবদান রাখবেন। মনে রাখবেন, নিজের কল্যাণ নয়, অন্যের কল্যাণে কাজ করার মাধ্যমে নিজের জীবনকে মহিমান্বিত করা যায়।

এই সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যারা আনুষ্ঠানিকভাবে পিএইচডি, এম ফিল, স্নাতকোত্তর ও স্নাতক ডিগ্রী লাভ করলেন, তাদের সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাই।

পরিশেষে ভারতের মহামান্য রাষ্ট্রপতি শ্রী প্রণব মুখার্জীকে আবারো আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ও তাঁর সার্বিক সাফল্য, সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে আমার বক্তব্য শেষ করছি।

মহান আল্লাহ আমাদের সহায় হোন।

খোদা হাফেজ, বাংলাদেশ চিরজীবী হউক।


   

 

Home | Contact us | Sitemap
© Copyright 2009, Bangabhaban - Bangladesh, all rights reserved.
Financed by Support to ICT Task Force (SICT) , Planing Division. Developed by : Ethics Advanced Technology Ltd. (EATL)